ঘোষনা
Teem24.com আপনার সব সময়ের সঙ্গী...

শিক্ষা সফর থেকে কোন শিক্ষা নাকি নাম ধরে রাখা মাত্র?

এম.এস রিয়াদ
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৪ জানুয়ারী, ২০২২
  • ৩১০ বার পঠিত

ছোটবেলা থেকেই শুনে এসেছি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে শিক্ষা সফর। এখনকার শিক্ষা সফরও সেকাল থেকেই উঠে আসা। এটি প্রতিবছর জানুয়ারি মাসে আয়োজন করে থাকে শিক্ষা সফর কিংবা আনন্দ ভ্রমণ নামে।স্কুল-কলেজের পাশাপাশি শুরু হয়েছে বিভিন্ন সংগঠন ও পাড়া-মহল্লা ভিত্তিক শিক্ষা সফরে বিভিন্ন পর্যটন এলাকায় ঘুরতে যাওয়া। এমন শিক্ষা সফর থেকে কি আসলে কিছু শিক্ষা পাচ্ছে? নাকি নামমাত্র ধরে রাখা হচ্ছে এমন ঐতিহ্য ও কালচারকে?

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে নানা সময়ে শোনা যায় যদি শিক্ষা সফরে যাওয়া না হয়, তাহলে শিক্ষা সফর বাবদ মূল টাকার সাথে জরিমানাও গুনতে হবে। এক ক্লাস থেকে অন্য ক্লাসে ওঠা কিংবা এসএসসি, এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ফরম ফিলাপের ভয় দেখানো বরাবরই একটি রূপে পরিণত হয়েছে শিক্ষকদের।

এমন শিক্ষাসফর আসলে কতটা যৌক্তিক? সচেতন মহলের মধ্যে প্রশ্ন রয়েই যায়। পারিবারিক অবস্থা না জেনে গরীব ও অসহায় পরিবারের শিক্ষার্থীকেও শিক্ষা সফরে যেতে বাধ্য করা হচ্ছে। তাই শিক্ষা সফরের নামে শিক্ষার্থীদের হয়রানি করা হচ্ছে কিনা তা খতিয়ে দেখা উচিত এখনই। এতে যেমন এক্সট্রা মানসিক চাপে পড়ছে শিক্ষার্থীরা, তেমনি শিক্ষা সফরে গিয়ে বিভিন্ন ধরনের যৌন হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে একজন ছাত্রীকে। সেটা হোক শিক্ষক, সহপাঠী বন্ধু, কিংবা নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সিনিয়র ভাইদের দ্বারা।

শিক্ষা সফরে গিয়ে তারা মনকে আটকে না রেখে এমনভাবে খুলে দেয়, যা নানামুখী যৌন হয়রানির শিকারে পরিণত হচ্ছে। এমন বহুবিধ প্রমাণ দৈনিক পত্রিকাগুলোতে রয়েছে। যদিও শিক্ষা সফরের মূল নীতি এমন হওয়া উচিত যে, ওই স্থান সম্পর্কে ঘুরে ঘুরে ধারণা নিয়ে ক্লাস ভিত্তিক এর উপরে একটি ভ্রমণ কাহিনী লেখা কিংবা এর অভিজ্ঞতা ক্লাসে ব্যক্ত করা।

কিন্তু এমনটা এখন কিংবা গত দশ বছরে আমার চোখে পড়েনি। পড়েছে কেবল শিক্ষার্থীদের শিক্ষা সফরের নামে হয়রানি ও ছাত্রীদের ওপর নানা ধরনের যৌন হয়রানির ভূমিকা। এতে একদিকে বিপর্যস্ত হচ্ছে সমাজ, অন্যদিকে ওই ছাত্রীর পারিবারিক ভাবে ভেঙে যাচ্ছে শিক্ষার মানদণ্ড এসব কুশিক্ষার প্রভাবে। তাই আমি সহ সমাজের সচেতন মহলের এমনটাই প্রত্যাশা যাতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃপক্ষ ও এর অধিদপ্তর সমূহ জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে একটি সুন্দর ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। যাতে করে শিক্ষা সফরের নামে ব্যবসা ও ছাত্রীদের উপরে মানসিক, শারীরিক এবং নানামুখী যৌন হয়রানি না ঘটে। যদি এখনই খতিয়ে দেখা না হয় তবে ঘটতে পারে দাম দিতে না পারা অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা।

লেখকঃ- সাহিত্য সম্পাদক ও সিনিয়র রিপোর্টার।

নিউজটি শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Cyber Planet BD